Connect with us

ধর্ম শিক্ষা

হে মুমিন! আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হয়ো না

Published

on

২১ রোজার প্রস্তুতির তারাবিহ অনুষ্ঠিত হবে আজ। আজ মুসল্লিরা আল্লাহর রহমতের ওপর আস্থা রাখার প্রাণশক্তি ফিরে পাবে। কারণ আজ হাফেজে কুরআনগণ মহান রবের সে আশার বাণী ঘোষণা করবেন। আল্লাহ তাআলা বলেন-
‘বলুন, হে আমার বান্দাগণ যারা নিজেদের ওপর জুলুম করেছ তোমরা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হইও না। নিশ্চয় আল্লাহ সব গোনাহ মাফ করেন। তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।’ (সুরা যুমার : আয়াত ৫৩)

আজকের তারাবিহতে পড়া হবে সুরা জুমার (৩২-৭৫), সুরা মুমিন এবং সুরা হা-মিম আস-সাজদা (১-৪৬) পড়া হবে। সে সঙ্গে ২৪তম পারার তেলাওয়াত শেষ হবে। আজকের তারাবির আলোচ্য বিষয়গুলো তুলে ধরা হলো-

সুরা যুমার (৩২-৭৫)
এ সুরাটিও মক্কায় অবতীর্ণ। সুরাতুল গোরাফ নামেও এ সুরাটি পরিচিত। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, সুরাটি মক্কায় অবতীর্ণ হলেও হজরত হামযা রাদিয়াল্লাহু আনহুর হত্যাকারী সম্পর্কিত যে তিনটি আয়াত অবতীর্ণ হয়েছে, আয়াত তিনটি মদীনায় অবতীর্ণ।

এ সুরার অধিকাংশ বক্তব্য তাওহিদ সম্পর্কিত। যারা তাওহিদে বিশ্বাস করে, তাদের পুরস্কার; যারা অবিশ্বাস করে তাদের শাস্তির কথাও এ সুরায় ঘোষিত হয়েছে। মানবতার কলংক শিরক তথা অংশীবাদের বাতুলতা ঘোষণা করা হয়েছে।

কেয়ামতের দিন কাফের ও মোশরেকদের টেনেহিঁচড়ে জাহান্নামের দিকে নিয়ে যাওয়া হবে আর মুত্তাকিদের জান্নাতে প্রবেশের জন্য আহ্বান করা হবে। ফেরেশতারা তাদের অভ্যর্থনা জানাবেন, তাদের খেদমতে সালাম পেশ করবেন আর তারা আল্লাহর প্রশংসা করতে করতে আপন নিবাস জান্নাতে প্রবেশ করবেন।

সর্বশেষ আল্লাহ তাআলা কিয়ামতের দিবসে বান্দাদের মধ্যে ন্যায় বিচারভিত্তিক ফয়সালা করবেন। যাতে আল্লাহ তাআলার শ্রেষ্ঠত্ব, মাহাত্ম্য এবং গুণাবলী সন্নিবেশিত হয়েছে।

সুরা মুমিন
সুরাটি মক্কায় নাজিল হয়েছে। আল্লাহ তাআলা শুরুতেই তাঁর অসাধারণ গুণাবলী দিয়ে সুরাটি আরম্ভ করেছেন যে, তিনি পরাক্রমশালী, মহাজ্ঞানী, গোনাহ মার্জনাকারী, তাওবা কবুলকারী, অবাধ্য বিদ্রোহীদের কঠোর শাস্তি প্রদানকারী। তিনি অনন্ত অসীম ক্ষমতাবান। তাঁর কানো শরীক নাই। তিনি একমাত্র উপাস্য। সমগ্র মানব জাতীকে পরিশেষে তাঁর নিকটই প্রত্যাবর্তন করতে হবে। অর্থাৎ এ সুরায়ও তাওহিদ বা একত্ববাদের গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। এ সুরায় আল্লাহ তাআলা তিনটি বিষয়ের ওপর আলোকপাত করেছেন-

>> তাওহিদ তথা একত্ববাদ সম্পর্কে
তিনি এক, তাঁর কোনো শরিক নেই; তাওহিদের বর্ণনা কোথাও দলিল-প্রমাণ সাব্যস্ত করেছেন; আবার কোথাও তাঁর আদেশ প্রদান করেছেন। এমনি ভাবে কুফর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেছেন। সর্বোপরি এ সুরায় তাওহিদের ধারক ও বাহকদের প্রশংসা ও সুসংবাদ রয়েছে এ সুরায়।

>> দুনিয়ায় বিবাদ সৃষ্টিকারীদের ধমকি প্রদান
সত্যের ব্যাপারে এ বিবাদ সৃষ্টিকারীরা ব্যাপক, যারা বিশ্বনবিকে অস্বীকার করতেন। এ কারণে তাদেরকে ইহকালীন লাঞ্ছনা ও পরকালীন কঠোর শাস্তির ধমকি প্রদান করা হয়েছে।

>> বিশ্বনবিকে সান্ত্বনা প্রদান
মক্কার কাফের মুশরিক কর্তৃক বিশ্বনবি যখন নানান লাঞ্ছনা-প্রবঞ্চনা, অত্যাচার, নির্যাতন, নিপীড়ন, অপপ্রচার এমনকি জীবন নাশের ব্যর্থ পরিকল্পনার সময় বিচলিত ঠিক তখনই আল্লাহ তাআলা তাঁর অসহায়ত্ববোধকে দূরীকরণ এবং স্বীয় মিশন পরিচালনায় অটল এবং অবিচল থাকার জন্য এ সুরার মাধ্যমেই সান্ত্বনা প্রদান করেন। তাই এ সুরায় স্থান পায় হজরত মুসা ও মরদুদ ফিরাউনের মধ্যকার ঘটনা।

সুরা হা-মিম আস-সাজদা (১-৪৬)
মক্কায় অবতীর্ণ এ সুরাটি সিজদা, হা-মিম আস-সিজদা, মাসাবিহ ও ফুসসিলাত নামে পরিচিত। এ সুরায় বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের রেসালাতের বর্ণনার পাশাপাশি মৃত্যুর পর মানুষের যে জীবন আসবে, সে সম্পর্কেও আলোকপাত করা হয়েছে।

তাই যারা বিশ্বনবির প্রতি ঈমান আনয়নে অনীহা প্রকাশ করে এবং তার বিরোধীতা করে, তাদের উদ্দেশ্যে কঠোর সতর্কবানীও উচ্চারিত হয়েছে এ সুরায়।

এ সুরার ৩০-৩১ আয়াতে আল্লাহ তাআলা কেয়ামতের দিন কাফেরদের কী অবস্থা হবে, তার বিবরণ শেষে মোমিন বান্দাদের সম্পর্কে বলা হয়েছে, ‘তারা একবার মনেপ্রাণে আল্লাহকে রব বলে মেনে নিলে আমরণ এ বিশ্বাসের ওপর অটুট-অবিচল থাকে। মৃত্যুর সময় এবং কেয়ামতের দিন ফেরেশতারা তাদের বলবেন, ভয় পেও না, জান্নাতের সুসংবাদ গ্রহণ করো। দুনিয়া ও আখেরাতে আমরা হলাম তোমাদের বন্ধু। জান্নাত তোমাদের জন্য, তোমাদের মন যা চায়, এমন সবকিছুই আছে সেখানে।’

সুরার শেষাংশে আল্লাহ তাআলার ন্যায়ানুগ ফয়সালার বিষয়টি আলোচিত হয়েছে। আল্লাহ তায়ালা এরশাদ করেন, ‘যে নেক আমল করবে, সে নিজের কল্যাণের জন্যই করবে। আর যে মন্দকাজ করবে তার প্রতিফল সে নিজেই ভোগ করবে। তোমার প্রতিপালক বান্দাদের প্রতি মোটেই জুলুম করেন না।’ (সুরা হা-মিম আস-সাজদাহ : আয়াত ৪৬)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে কুরআনের এ গুরুত্বপূর্ণ সুরাগুলো বুঝে পড়ার এবং তাঁর ওপর আমল করার পাশাপাশি নিজেদের আকিদা-বিশ্বাসকে শিরকমুক্ত রাখার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিশেষ-সংবাদ

কপিরাইট © ২০১৮ -২০২১ স্কুল নিউজ। প্রধান সম্পাদক ডঃ মোমেনা খাতুন। ১৮/৬ মোহাম্মদিয়া হাউজিং, মোহাম্মদপুর, ঢাকা। যোগাযোগঃ info@schoolnews.com.bd